সৈয়দ মাহমুদ হোসেন – বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি

সৈয়দ মাহমুদ হোসেন

মাননীয় বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ১৯৫৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর জন্মগ্রহণ করেন। সৈয়দ মাহমুদ সৈয়দ মোস্তফা আলীর পুত্র। এখন তিনি বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি।

শিক্ষা জীবনঃ

লর্ডশিপ তাঁর স্কুল জীবন কুমিল্লায় কাটিয়েছেন। তিনি ১৯৭২ সালে এসএসসি কুমিল্লা জিলা স্কুল থেকে এবং ১৯৭৪ সালে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। এরপর তিনি ১৯৭৬ সালে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। এর পরে, ১৯৮০ সালে কুমিল্লা আইন কলেজ থেকে তার আইন ডিগ্রি অর্জন করেন। তারপরে তিনি লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে “রিপাবলিক ইয়ং আইনজীবী কোর্স” গ্রহণ করেন।

পেশা জীবনঃ

সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের কর্মজীবন ১৯৮১ সালে জেলা আদালতের আইনজীবী হিসাবে শুরু হয়েছিল। তিনি ১৯৮৩ সালে বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে অ্যাডভোকেট হিসাবে নাম নথিভুক্ত করেন। তারপরে ১৯৯৯ সালে তিনি ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল হিসাবে যোগদান করেন। তিনি বেঞ্চে উন্নয়নের আগ পর্যন্ত ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল হিসাবে কাজ করেছিলেন।

তিনি ২২ শে ফেব্রুয়ারী, ২০০১-এ হাইকোর্ট বিভাগের অতিরিক্ত বিচারক হন। এরপরে তিনি ২২ শে ফেব্রুয়ারী, ২০০৩-এ হাইকোর্ট বিভাগের বিচারক হিসাবে যোগদান করেন। তিনি ২২ শে ফেব্রুয়ারী, ২০১১ পর্যন্ত হাইকোর্টের বিচারক ছিলেন।

সৈয়দ মাহমুদ হোসেন- বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি

২৩ শে ফেব্রুয়ারী, ২০১১ এ তাকে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে বিচারপতি করা হয়েছিল। সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ৩ এ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ এ বাংলাদেশের ২২ তম প্রধান বিচারপতি হিসাবে শপথ গ্রহণ করেছিলেন।

উল্লেখযোগ্য কাজসমুহঃ

প্রধান বিচারপতি পেনাং-মালয়েশিয়া, নরওয়ে, ডেনমার্ক, সুইডেন, ভারত, দক্ষিণ কোরিয়া এবং হংকংয়ে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক সেমিনারস এবং স্টাডি ট্যুরগুলিতে অংশ নিয়েছিলেন।

ইউএনডিপি-র অন্তর্দৃষ্টি এবং বাণিজ্য ভাগ করে নেওয়ার জন্য তিনি ইউএনডিপি-র দ্বারা বহাল হওয়া জুডিশিয়াল স্ট্রেননিং (জাস্ট) প্রকল্পের আওতায় ২০১২ সালে কানাডা এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আদালত পরিদর্শন করেছেন।

তিনি একাধিকবার অনুসন্ধান কমিটির চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ২০২১ সালের ৩০ ডিসেম্বর অবসর গ্রহণ করার কথা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here