বাংলায় সেরা বই আপনার অবশ্যই পড়া উচিত পর্ব -১ (১-১০)

মানসম্পন্ন বাংলা সাহিত্যের সমুদ্রের মধ্যে বাংলা সেরা বইগুলি বেছে নেওয়া সহজ নয়। বাংলা সাহিত্যের পরিধি বিভিন্ন যুগ এবং বিভিন্ন ঘরানার কাজ করে।

বাংলাদেশ ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গ উভয় দেশের লেখকই বাংলা ভাষা সমৃদ্ধ করেছেন। তাদের লেখাগুলি কেবল বেঙ্গালিরা নয়, অন্যরাও উপভোগ করেছেন কারণ বেশিরভাগ প্রধান বাংলা সাহিত্যের রচনাগুলি একাধিক ভাষায় অনুবাদ করা হয়েছে।

আমরা আপনাকে বাংলায় সেরা বইয়ের একটি তালিকা দিচ্ছি তবে আপনি চাইলে অবশ্যই এগুলি অন্য ভাষায় অনুবাদ পাবেন ।

১. পথের পাঁচালী- বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়:
এই উপন্যাসটি লিখেছেন বিভূতিভূষণ বন্দোপাধ্যায়। গল্পটি রয় পরিবারের গল্প। এই বইটি আমাদের সুন্দর গ্রামবাংলা এবং সেখানকার দরিদ্র মানুষের কঠোর জীবন সম্পর্কে বলে। উপন্যাসটি ১৯২৯ সালে প্রকাশিত হয়েছিল। পরবর্তীতে সত্যজিৎ রায় একই নামের প্রথম ছবিতে রূপান্তরিত করেন।

২. শেষের কবিতা ( The last poem) রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর:
শেষের কবিতা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের একটি উপন্যাস, যা বাংলা সাহিত্যে এক বহুল প্রতীক হিসাবে বিবেচিত। উপন্যাসটি ১৯২৮ সালে প্রকাশিত হয়। ইংরেজিতে “The last Poem” হিসাবে অনুবাদ করা হয়। এটি অমিত এবং লাবণ্যর মধ্যে একটি প্রেমের গল্প।
শিলংয়ের সুন্দর হিল স্টেশনটিতে প্লটটি অনেক সুন্দর করা সাজানো হয়েছিল। একটি ছোট মোটর দুর্ঘটনার কারণে নায়ক- নায়িকার দেখা হয় এবং শীঘ্রই তাদের মধ্যে তীব্র রসায়ন গড়ে উঠে। তারা তাদের কবিতার মাধ্যমে দর্শন আবিষ্কার করেছিলেন।

৪. আনন্দ মঠ (Ananda Math) বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়:
আনন্দমঠটি ১৮৮২ সালে প্রকাশিত হয়। ১৮ শতকের শেষদিকে সন্ন্যাসী বিদ্রোহের পটভূমিতে এটি অনুপ্রেরণা দিয়েছে। সন্ন্যাসীরা ব্রিটিশদের সাথে সমস্ত প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে লড়াই করে, যাকে তারা দেশের প্রধান শত্রু হিসাবে বিবেচনা করে এবং ১৭৭২ সালের ভয়াবহ দুর্ভিক্ষের জন্য দায়ী করে। লেখাটি বাঙালির ইতিহাসের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উপন্যাস হিসাবে বিবেচিত হয়।

৪. দুর্গেশনন্দিনী (Durgeshnandini) বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়:
দুর্গেশনন্দিনী বাঙালি লেখক বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় রচিত একটি ঐতিহাসিক ভালোবাসার উপন্যাস। এটি ১৯৬৫ সালে প্রকাশিত হয়। তরুণ জগৎকে তাঁর পিতা মোগল জেনারেল মানসিংহ বাংলায় পাঠান বিদ্রোহ দমন করতে পাঠান। সেখানে তিনি প্রবীণ বীরেন্দ্র সিংয়ের লোভনীয় কন্যা তিলোত্তমার প্রেমে পড়েন, তারা কেবল তাদের দুই পরিবারের মধ্যে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতার সন্ধান দেরিতে করেন।

৫. দেবদাস (Devdas) শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়:
এটি শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় রচিত একটি সর্বোত্তম ভালো লেখা- প্রেমিকের কী করা উচিত নয় তা আমাদের জানান! যদি সে তা করে, তার ভালবাসা যতই গভীর এবং সত্য হক না কেন তাঁর বিনষ্ট নির্ধারিত। গল্পটি একটি উচ্চ জাতের ছেলের গল্প, যে একটি মেয়েকে তার বর্ণের কারণে অস্বীকার করে এবং তার জন্য সারা জীবন তার জন্য দূরে থাকে।

৬. লালসালু (Lalsalu) সৈয়দ ওয়ালিউল্লাহ:
লালসালু হলেন সৈয়দ ওয়ালিউল্লাহ রচিত একটি উপন্যাস। উপন্যাসটি প্রথম ১৯৪৭ সালে প্রকাশিত হয়েছিল, দ্বিতীয়টি ১৯৬০ সালে প্রকাশিত হয়েছিল। যদিও এর পটভূমি ১৯৪০ বা ১৯৫০ এর গ্রাম্য সমাজ, তবুও এর প্রভাব বা বিস্তার কালো। গ্রামীণ সমাজের সাধারণ মানুষের সরলতার কেন্দ্রিক ব্যবসায়ের উপাদান হিসাবে ধর্মের ব্যবহারের নগ্ন চিত্রটি উপন্যাসটির মূল বিষয়বস্তু।

৭. কপালকুণ্ডলা (Kapalkundala) বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়:
কপালকুণ্ডলা বা কপালকুণ্ডলা মৃন্ময়ী নামেও পরিচিত, এটি বঙ্কিমচন্দ্র চ্যাটার্জী রচিত একটি বাংলা প্রেমের উপন্যাস। কপালকুণ্ডালা একটি রাজনৈতিক কল্পিত উপন্যাস, এর সাথে এটি রোমান্টিক উপন্যাসগুলির একটি। গল্পের প্রধান মহিলা চরিত্রগুলির মধ্যে একটি হ’ল – ‘কাপালকুণ্ডলা’ তিনি এই গল্পের স্বামীর অনুগত এবং মহিলাদের প্রতি শ্রদ্ধা এবং আত্ম-শ্রদ্ধার উপর প্রচুর বিশ্বাসী থাকে।

৮. চাঁদের পাহাড় (Chander Pahar) বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায় :
চাঁদের পাহাড় বিভূতিভূষণ বন্দোপাধ্যায় রচিত একটি বাংলা অ্যাডভেঞ্চার উপন্যাস। এই বইটি পহেলা জুন, ২০১৩ প্রকাশিত হয়েছিল। আফ্রিকার বনের এক যুবক বাঙালির দুঃসাহসিক কাজ নিয়ে উপন্যাস। উপন্যাসটি বাংলা সাহিত্যের অন্যতম বিখ্যাত সাহসিক উপন্যাস। চাঁদের পাহাড় বিভূতিভূষণের অন্যতম জনপ্রিয় রচনা।

৯. পাক সার জমিন সাদ বাদ (Pak Sar Jomin Sad Bad) হুমায়ুন আজাদ :
পাক সর জোমিন সাদ বাদ লিখেছেন হুমায়ুন আজাদ। এইটি তাঁর আরেকটি জনপ্রিয় উপন্যাস। ধর্মীয় মৌলবাদের বিরুদ্ধে তাঁর লেখাগুলি ইতিবাচক এবং নেতিবাচক উভয় পর্যালোচনা পেয়েছিল। তাঁর লেখার জন্য তাঁকে ইসলামপন্থী মৌলবাদী গোষ্ঠীগুলি দ্বারা হুমকি ও আক্রমণ করা হয়।

১০. কুহেলিকা (kuhelika) – কাজী নজরুল ইসলাম :
কুহেলিকা বাংলাদেশের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম রচিত একটি উপন্যাস। ১৩৩৪ বঙ্গাব্দের আষাঢ় মাসে কলকাতা থেকে প্রকাশিত মাসিক নওরোজ পত্রিকায় “কুহেলিকা” উপন্যাসের প্রথম অংশ প্রকাশিত হয়। তার কিছুদিন পর নওরোজ বন্ধ হয়ে গেলে সওগাত পত্রিকায় তা ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হয়। ১৯৩১ খ্রিষ্টাব্দে এটি প্রথম গ্রন্থাকারে প্রকাশিত হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here