বাংলায় সেরা বই আপনার অবশ্যই পড়া উচিত পর্ব -২ (১১-২০)

মানসম্পন্ন বাংলা সাহিত্যের সমুদ্রের মধ্যে বাংলা সেরা বইগুলি বেছে নেওয়া সহজ নয়। বাংলা সাহিত্যের পরিধি বিভিন্ন যুগ এবং বিভিন্ন ঘরানার কাজ করে।

বাংলাদেশ ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গ উভয় দেশের লেখকই বাংলা ভাষা সমৃদ্ধ করেছেন। তাদের লেখাগুলি কেবল বেঙ্গালিরা নয়, অন্যরাও উপভোগ করেছেন কারণ বেশিরভাগ প্রধান বাংলা সাহিত্যের রচনাগুলি একাধিক ভাষায় অনুবাদ করা হয়েছে।

আমরা আপনাকে বাংলায় সেরা বইয়ের একটি তালিকা দিচ্ছি তবে আপনি চাইলে অবশ্যই এগুলি অন্য ভাষায় অনুবাদ পাবেন ।

১১. শঙ্খনীল কারাগার (Shonkhonil Karagar) হুমায়ূন আহমেদ :
হুমায়ূন আহমেদের অন্যতম সেরা বই। গল্পটি আপনাকে প্রতিবার স্পর্শ করবে। আমি মানুষকে এটি পড়ার পরামর্শ দিই। শঙ্খনীল কারাগার ১৯৭৩ সালে প্রকাশিত হয়েছিল। বাংলাদেশে একই নাম নিয়ে এই উপন্যাস থেকে একটি জনপ্রিয় চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছে।

১২.পুতুল নাচের ইতিকথা (Putul Nacher Itikotha) মানিক বন্দোপাধ্যায় :
পুতুল নাচের ইতিকোঠা প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল ২২ শে মে, ১৯৩৬। মানিক বন্দোপাধ্যায়ের আর একটি জনপ্রিয় উপন্যাস। উপযুক্ত বিশেষণগুলির ব্যবহার এটিকে অনন্য করে তোলেছে। লেখার স্বাচ্ছন্দ্য বিস্ময়কর, এই উপন্যাসটির চরিত্রায়ন মন্ত্রমুগ্ধকর।

১৩. শঙ্কু সমগ্র (Shanku Samagra) সত্যজিৎ রায় :
প্রকাশের সময়, এই উপন্যাসের ফর্ম্যাটটি বাংলা সাহিত্যে এমন অভিনবত্ব ছিল, প্রতিটি গল্প একটি ডায়েরি এন্ট্রি আকারে রচিত হয়েছিল যা পাঠককে আসলে শঙ্কু প্রকৃতপক্ষে জীবিত ব্যক্তি হওয়ার সম্ভাবনা বিবেচনা করেছিল। প্রাথমিক লক্ষ্যটি ছিল তরুণ বয়স্করা। এই সিরিজের দুর্দান্ত দিকটি হ’ল পাঠকরা বিশ্বের বিভিন্ন সংস্কৃতি সম্পর্কে এত কিছু শিখতে পারেন। এটি কিশোরদের জন্য সত্যই দুর্দান্ত হতে পারে, যারা একটি ভাল গল্পের রোমাঞ্চের পাশাপাশি তথ্য সন্ধান করে।

১৪. ফেলুদা সমগ্র (Feluda Samagra) সত্যজিৎ রায় :
ফেলুদা হলেন এক বাঙালি গোয়েন্দা, যিনি তাঁর উদ্বেগ বুদ্ধি ব্যবহার করে রহস্যগুলি সমাধান করেন। সত্যজিৎ রায়ের লেখা ধারাবাহিক গোয়েন্দা গল্পের মূল চরিত্রটি হলেন প্রাইভেট গোয়েন্দা প্রদোষ চন্দ্র মিত্র। বেশিরভাগ তার ডাক নাম, ফেলুদা দ্বারা পরিচিত। ফেলুদা একজন লম্বা এবং ক্রীড়াবিদ হিসাবে চিহ্নিত, যিনি মার্শাল আর্টে দক্ষ ছিলেন এবং সহজেই আগ্নেয়াস্ত্র পরিচালনা করতে পারেন। তবে, তিনি পর্যবেক্ষণের তীব্র শক্তিসমূহের সাহায্যে তার বিশ্লেষণাত্মক দক্ষতা দিয়ে অপরাধ সমাধান করতে পছন্দ করেন।
১৯৬৫ সালে, বাঙ্গালী শিশুদের পত্রিকা, সন্দেশ, প্রথম ফেলুদা প্রকাশিত হয়েছিল। তাঁর প্রথম অ্যাডভেঞ্চারের নাম ছিল- ফেলুদা গোয়েন্দাগিরি। সত্যজিৎ রায় মোট ৩৫ টি ফেলুদা গল্প লিখেছিলেন, সর্বশেষটি ১৯৯২ সালে প্রকাশিত হয়েছিল।

১৫. সেই সময় (Those Days) সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় :
সময়টি যখন কলকাতার বাবুসামাজ মদ, মহিলা এবং বিলাসিতা নিয়ে জড়িত, যখন নতুন শিক্ষিত যুবকরা ব্রিটিশদের আবেগের সাথে অনুকরণ করছে, গ্রামগুলি নিঃস্ব এবং সংস্কৃতিচর্চা, সমাজ এবং ধর্মীয় সংস্কারের নামে মানুষকে শোষণ করা হচ্ছে , তরুণ বিদ্যাসাগর মধ্যবিত্তে বেড়ে উঠছেন, লেখক সেই সময়ের কথা বলছেন।

১৬. গল্পগুচ্ছ (Galpaguchchha) রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর :
গল্পগুচ্ছ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের একটি জনপ্রিয় বাংলা বই। বইটিতে ৯৫ টি ছোট গল্পের সংকলন রয়েছে যা সবচেয়ে জনপ্রিয়। তিনি বাংলা বছরের ১৯৮৮ থেকে ১৩১০ সাল পর্যন্ত বেশিরভাগ গল্প লিখেছিলেন। ইন্ডিয়ান পাবলিশিং হাউস ১৯০৮ থেকে ১৯০৯ সাল পর্যন্ত পাঁচটি অংশে বইটি প্রকাশ করেছিল। বইগুলির সর্বাধিক জনপ্রিয় গল্পগুলি হ’ল পোস্ট মাস্টার, বাবোধন, হোইমন্টি, নস্টনির, মালায়দান, ইত্যাদি .

১৭. একাত্তরের দিনগুলি ( Ekattorer Dingulee) জাহানারা ইমাম :
একাত্তরের দিনগুলি ”একাত্তরের স্বাধীনতা যুদ্ধের এক অসাধারণ বিবরণ। যেখানে প্রায় ৩০ লক্ষ মানুষ মারা যায় এবং যুদ্ধটি নয় মাস ধরে চলে, দেশটি প্রায় ধ্বংস হয়ে যায়। যাইহোক, এই সংখ্যাগুলি এবং দৃশ্যমান ক্ষতির পিছনে যে মানুষ গুলো বেঁচেছিল তাদের ভুঘতে হয় চরম যন্ত্রণায়। জাহানারা ইমাম সেই বেদনাদায়ক স্মৃতি প্রকাশ করেছেন, “একাত্তরের ডিঙ্গুলি” -তে একটি ডায়েরি আকারে।

১৮.জোছনা ও জননীর গল্প (Jochona O Jononir Golpo) হুমায়ূন আহমেদ:
সম্ভবত হুমায়ূন আহমেদের সেরা কাজ। এই বইটি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সংক্ষিপ্ত ইতিহাসকে এমন আশ্চর্য উপায়ে উপস্থাপন করে যে বইটি পড়ার সময় ধ্বংসাত্মক যুদ্ধের কারণে জীবনের জীবন ভয়াবহভাবে পরিকল্পনার বাইরে চলে গিয়েছিল এমন মানুষের মানসিক পরিস্থিতি অনুভব করতে পারে।

১৯. মা (Freedom’s Mother) আনিসুল হক :
“মা” একটি মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক উপন্যাস। লেখক এই গল্পটি মুক্তিযোদ্ধা নাট্যকার নাসিরুদ্দিন ইউসুফ বাচ্চুর কাছ থেকে পেয়েছেন। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের বীর মুক্তিযোদ্ধা মাগফার আহমেদ চৌধুরী আজাদ ও তাঁর মায়ের সত্যিকারের জীবন নিয়ে এই উপন্যাসটি। বইটি ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছিল এবং প্রচুর পাঠকপ্রিয়তা পেয়েছিল।

২০.পদ্মানদীর মাঝি (Boatman of the Padma) মানিক বন্দ্যোপাধ্যায় :
পদ্মানদীর মাঝি হল আধুনিক বাংলা উপন্যাসের বিস্তীর্ণ উঠোনে নদীপ্রেমীদের নিয়ে রচিত প্রথম উপন্যাস। এটি ১৯৩৬ সালে প্রকাশিত হয়েছিল।
উপন্যাসটি কুবের নামে এক তুচ্ছ ব্যক্তির জীবনকে কেন্দ্র করে । উপন্যাসটি সুন্দরভাবে সাজানো হয়েছে তার আর্থিক এবং নৈতিক জীবন, আশা-আকাঙ্ক্ষা, সুখ-দুঃখকে ঘিরে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here